উপন্যাস ” মারিজুয়ানা” পর্ব ২৬ -নুরুন নাহার লিলিয়ান

/উপন্যাস ” মারিজুয়ানা” পর্ব ২৬ -নুরুন নাহার লিলিয়ান

উপন্যাস ” মারিজুয়ানা” পর্ব ২৬ -নুরুন নাহার লিলিয়ান

পাঁচ মাস পরের কথা । এর মধ্যে নাতালিকে জাপান পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে । মারিজুয়ানার দিন গুলো কোন রকমে ভালই কেটে যাচ্ছিল । মারিজুয়ানার ছোট ভাই রাজিব কে শফিক মধু প্রজেক্টে নিয়োগ দিয়েছে ।শফিক বাংলাদেশ থেকে মধু জাপানে পাঠায় । রাজিব এর আগে দু’মাস কাজ করেছিল । তখন সে একটি বেসরকারি বিশ্ব বিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্সে সেকেন্ড ইয়ারে পড়ছিল ।

শফিকের খারাপ ব্যবহার আর পড়াশুনার ক্ষতি হচ্ছিল বলে একদিন চুপচাপ চলে গিয়েছিল ।দেড় মাস হয় মাস্টার্স শেষ করেছে । মা- বাবা এবং বোন মারিজুয়ানার অনুরোধ আর পিড়াপীড়িতে আবার সেই মধু প্রজেক্টে যোগ দেয় ।রাজিব অন্তর্মুখী এবং আত্মমর্যাদা সম্পন্ন এক শিক্ষিত তরুন । বোন মারজানের দুঃখ গুলো সে ভীষণ ভাবে অনুভব করে ।কিন্তু সে যে কিছুই করতে পারে না । জীবনের অসহায়ত্ব গুলো না পারে নিজেকে সাহায্য করতে । না পারে বোনকে দোযখ থেকে বাঁচাতে ।

পড়াশুনা করার সময় থেকেই অনেক ফার্মে চাকরির চেষ্টা করেছে । কিন্তু সবাই ফ্রি খাটায় । কেউ উপযুক্ত বেতন দিতে চায় না । আর মামা চাচা না থাকলে এই ঢাকা শহরে ভাল বেতনের চাকরি পাওয়া অনেক কঠিন ।তাই অনিশ্চিত সময়ে ভাগ্যকে সঁপে না দিয়ে বোনের স্বামীর ফার্মেই যোগ দিতে হল । শফিক তাদের সব সময় খুব অবহেলার দৃষ্টিতে দেখে । চলনে বলনে তাঁর ভেতরে অনেক পার্থক্য রেখে চলে । রাজিব সব বুঝতে পারে । মাঝে মাঝে অসহায় অভিমানী মনটা ফুঁসে উঠে । কিন্তু জীবনের কঠিন বাস্তবতার কাছে নিজেকে বিনীত রাখতেই হয়।

নিজের আপন শ্যালক হলেও রাজিবের মারিজুয়ানার বাসায় থাকার অনুমতি নেই । স্টাফ টনি আর রাজিব সহ আরও কয়েক জন ধানমন্ডির জিগাতলা একটা ফ্ল্যাটে মেস করে থাকে । মারিজুয়ানার এটা নিয়ে অনেক আপত্তি থাকলে ও স্বামী শফিক কে কিছুই বলতে পারে না । যদি রাজিব কে বাদ দিয়ে দেয় ।
অনেক সময় ছোট ভাইটিকে ভাল মন্দ খাওয়াতে মন চায় । কিন্তু সব সময় ইচ্ছে থাকলে ও করতে পারে না ।

সেদিন এক জাপানির বাসায় লাঞ্চ ছিল । তাই সব স্টাফদেরও বাসায় খাওয়ার ব্যবস্থা ছিল । সে সময় মারিজুয়ানার খুব কাছাকাছি ছিল টনি আর রাজিব । লাঞ্চ শেষে জাপানিকে নিয়ে শফিক যখন অফিস রুমে চলে যায় । তখন টনি আর রাজিব ব্যবসার যাবতীয় কথা মারিজুয়ানা কে বলে ।এই কয়দিনে রাজিব এবং টনির সাথে ভাল বন্ধুত্ব হয়ে গিয়েছে । দুজনের বয়স ও প্রায় কাছাকাছি ।টনিকে মারিজুয়ানা সব সময় ছোট ভাইয়ের মতোই আদর করে । আর টনি ছেলেটার ভেতর একদম একটা সহজ সরল বাচ্চা বসবাস করে ।বাস্তবতা অনেক সময়ই বুঝতে পারে না । সহজ সরল ভাবে সত্য কথা গুলো বের হয়ে আসে ।
মারিজুয়ানা সবাইকে তাড়াতাড়ি খেয়ে মেসে ফিরে যেতে বলছিল ।

কারন সন্ধ্যায় ল্যাব এইড হাসপাতালে মারিজুয়ানার ডাক্তারের এপোয়েন্টমেন্ট আছে ।
টনি মারিজুয়ানার ডাক্তারের কাছে যাওয়ার কথা শুনেই বলছিল ,” স্যার কি যাবে ম্যাম আপনার সাথে ?”
মারিজুয়ানা ঠাণ্ডা সুরে বলল ,” হুম ।যাবে। ”
টনি আবার বলল ,” কোন সমস্যা হলে আমাদের জানাবেন।”
মারিজুয়ানা হেসে দিয়ে বলল ,” আচ্ছা জানাব । সব সমস্যা সবাইকে জানানো যায় না ।”
টনি আমতা আমতা করে জিজ্ঞেস করল ,” নাতালি ম্যাম কি যোগাযোগ করেছিল ?”
মারিজুয়ানার হঠাৎ মন খারাপ হয়ে গেল । নাতালি জাপান ফিরে যাওয়ার পর একবার ও স্বেচ্ছায় কোন যোগাযোগ করেনি । এমন কি শফিকের সাথে ও না ।মেয়েটির ভেতরে খুব স্বাভাবিক আচরনের ঘাটতি আছে ।
নাতালি চলে যাওয়ার আগে টনি দুই তিন মাস নাতালি কে বাংলা শেখাত । শফিকই বলে দিয়ে ছিল সপ্তাহে দুই একদিন নাতালির সাথে বসতে । টনি এবং নাতালি প্রায় সমবয়সী ।নাতালিকে বাংলা পড়াতে গিয়ে অনেকটা মনে মনে দুর্বল হয়ে পড়েছিল ।

Sponsored Ads BEST INTERIOR DESIGN COMPANY IN BANGLADESH

টনি মধ্য বৃত্ত ঘরের সহজ সরল ছেলে হলে ও বাস্তব জ্ঞান বুদ্ধি তার আছে । সে খুব ভাল করে জানে নাতালি তার বসের মেয়ে । যখন সে প্রায় শুক্রবার সন্ধ্যায় নাতালিকে বাংলা পড়াতো মারিজুয়ানা দেখতো টনির চোখে মুখে এক অপ্রতিরোধ্য সহজ সরল ভালোবাসার বৃষ্টি ঝরছে ।প্রায়ই নাতালির খুব কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করতো । পড়াতে গিয়ে নাতালির সানিধ্যে সে যেন স্বর্গ সুখ পেতো । একবার পড়াতে বসলে আর উঠতেই চাইতো না ।

নাতালির রূপের মায়াজালে যেন টনির সহজ সরল অনুভূতি গুলো আটকে যাচ্ছিল । মারিজুয়ানা সব কিছু স্পর্শ করতে পেরে শফিক কে জানায় । তারপর টনিকে অন্য কাজে ব্যস্ত রাখা হয় । আজকে টনির কথা শুনে মনেহল টনির মনের ভেতরে অনুক্ত অভিমানি ভালবাসাটা হয়তো ডুকরে কাঁদছে ।মারিজুয়ানা টনির সেই লুকানো ভালবাসাটা অনুভব করতে পারে । কিন্তু কঠিন বাস্তবতার কাছে সব কিছুই অসহায় ।
মারিজুয়ানা টনিকে আন্তরিকতা নিয়েই জিজ্ঞেস করল,” তোমার সাথে নাতালি যোগাযোগ করেনি ?”
টনি মাথা নিচু করে খুব শান্ত ভাবে উত্তর দেয় ,” না । আমার সাথে যোগাযোগ করার কোন কারন নেই । তাছাড়া নাতালি ম্যাম ফেসবুকে একটিভ না । ইন্সট্রাগ্রামে বেশি সময় দেয় । ”
মারিজুয়ানা একটু সিরিয়াস হয়ে বলে ,” বাবার এতো আদরের মেয়ে ।সেই বাবার সাথেই যোগাযোগ করেনি । আমিই একদিন নিজে থেকে মেসেজ দিয়ে খবর নিয়েছি ।অদ্ভুত !”
টনি মনেহয় কিছু গোপন কথা বলার সুযোগ পেল ।
একটু নড়ে চড়ে বসে বলল ,” জানেন ম্যাম কিছু মনে করবেন না । আপনি স্যার কে এতো ভালবাসেন । অথচ স্যার সবাইকে বলে আমার দুটো ছেলে মেয়ে ছাড়া আপন কেউ নেই । ছেলে মেয়ে দুটো কে প্রতিষ্ঠিত করতে পারলেই আমি ধন্য। ”
মারিজুয়ানার মুখটা কাল আঁধারে ঢেকে যায় । মারিজুয়ানা খুব ধীর কণ্ঠে বলে ,” আমার কোন কথাই বলে না ,তাই না?”
টনি মাথা নিচু করে বলে ,” জি ম্যাম । স্যার সব সময় তাঁর ছেলে মেয়ে নিয়েই কথা বলে । আমি অবাক হয়ে যাই আপনার প্রতি কি তাঁর কোন ফিলিং নেই !”
মারিজুয়ানা ভেতরে ভেতরে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেল । বুকের কোথাও ভীষণ রকম ব্যথা হতে শুরু করল ।দু’চোখ ছাপিয়ে কান্নার নোনা জল ছল ছল করে উঠল । কিন্তু টনির সামনে নিজেকে সংযত করে নিল ।

পুরো বিষয়টাকে অন্য দিকে নিতে মারিজুয়ানা প্রসঙ্গ পাল্টালো । চেহারায় স্মিত হাসি টেনে জিজ্ঞেস করল ,” রাজিবের সাথে থাকতে তোমার কেমন লাগছে ?”
টনি খুব আন্তরিক ভাবে সহজ উত্তর দিল ,” জি ম্যাম ভাল । নাতালি ম্যাম চলে যাওয়ার পর কিছুদিন একা একা লেগেছিল । এখন রাজিব ভাইয়ের সাথে বেশ মজার সময় কাটে । ”
রাজিব কে প্রজেক্টের স্টাফ হিসেবে পঁচিশ হাজার টাকা বেতন দেয় । এই টাকা থেকে পাঁচ হাজার করে গ্রামের বাড়ি পাঠায় । মারিজুয়ানা হাত খরচ কিংবা সংসারের খরচ থেকে বাঁচিয়ে কিছু টাকা বাবা মা কে দেয় ।
কয়েক মাস ধরে মা বাবা ভালই আছে । বড় ছেলের কাছে আর টাকা চাইতে গিয়ে অপমানিত হতে হয় না ।
মারিজুয়ানার বড় ভাই এবং ভাবির কূটকৌশলের কারনেই মারিজুয়ানা এখন শফিকের মতো হৃদয়হীন লোকের বউ নামক দাসী হয়ে আছে।টাকার লোভে নিজের বোন কে শফিকের বয়স্ক ব্যবসায়ীর কাছে বিয়ে দিয়েছে । মারিজুয়ানা জানে না তার ভাই এই বিয়ে কে কেন্দ্র করে শফিকের কাছ থেকে অনেক টাকা ও নিয়েছে ।
কখন ও জীবন মানুষকে কোন অচেনা মহা সমুদ্রে ফেলে দেয় । সেখানে শ্বাস প্রশ্বাস নিয়ে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকাই জীবন । সবার জীবনেই অনেক অচেনা ঢেউ আসে । লন্ড ভন্ড করে দিয়ে যায় । তবু ও সব কিছুর শেষে মানুষ বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে ।
মারিজুয়ানা ও বার বার ডুবতে ডুবতে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে । পরিবারের সবার মুখে একটু হাসি দেখে বেঁচে থাকতে চায় । পৃথিবীর সব টুকু রহস্য হয়তো এই বেঁচে থাকা আর মরে যাওয়ার মধ্যবর্তী সময় টুকুর মধ্যে । মারিজুয়ানা সাহসের সাথে সেই রহস্যকেই স্পর্শ করতে চায় ।

নুরুন নাহার লিলিয়ান

ম্যাগাজিন এ লিখতে  এখানে রেজিস্ট্রেশন করুন  

সবগুলো পর্ব পড়তে  এখানে ক্লিক করুন 

Sponsored Ads

BEST INTERIOR DESIGN COMPANY IN BANGLADESH

লাইক করুন , কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করুন ।

Facebook Comments

2018-11-11T13:17:13+00:00

About the Author:

Leave A Comment

Shares